সংস্কার না হলে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি নামতে পারে ৪ শতাংশের নিচে: বিশ্বব্যাংক

সময় ট্রিবিউন | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫:২২

সংগৃহীত সংগৃহীত

২০৩৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ৪ শতাংশের নিচে নেমে যেতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে বিশ্বব্যাংকের সমীক্ষায়।

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সংস্কারে তিনটি বাধা খুঁজে পেয়েছে বিশ্বব্যাংক। ব্যাপক সংস্কার না হলে ২০৩৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ৪ শতাংশের নিচে নেমে যেতে পারে। একটি সমীক্ষায় এই তথ্য তুলে ধরেছে প্রতিষ্ঠানটি।

সমীক্ষার প্রতিবেদন অনুযায়ী বাধা তিনটি হলো- বাণিজ্য প্রতিযোগিতার হ্রাস, একটি দুর্বল ও অরক্ষিত আর্থিক খাত এবং ভারসাম্যহীন ও অপর্যাপ্ত নগরায়ন। যদি এই তিনটি প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করা যায়, তাহলে উন্নয়ন বৃদ্ধি পাবে এবং প্রবৃদ্ধি আরও টেকসই হবে।

বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দ্রুত বর্ধনশীল দেশের মধ্যে একটি। তবে আত্মতুষ্টির কোনো কারণ নেই। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অর্থনৈতিক উচ্ছ্বাস কখনই স্থায়ীপ্রবণ নয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দ্রুত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রবৃদ্ধি সবসময় উচ্চ ঝুঁকির মধ্যে থাকে। খুব কম দেশই দীর্ঘ সময়ের জন্য উচ্চ প্রবৃদ্ধি ধরে রেখেছে। শীর্ষ দশে থাকা দেশগুলোর মাত্র এক-তৃতীয়াংশই পরবর্তী দশকে উচ্চ প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে বিশ্বব্যাংক কিছু সুপারিশ করেছে। এরমধ্যে রপ্তানির প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে পণ্যে বৈচিত্র্য আনার বিষয়টিও রয়েছে।

এছাড়া, বাংলাদেশের শুল্ক হার অন্যান্য দেশের তুলনায় বেশি; এ কারণে বাণিজ্য সক্ষমতা কমছে।

ব্যাংকিং খাত প্রসঙ্গে বিশ্বব্যাংক বলেছে, এটি ভবিষ্যতে অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তবে গত চার দশকে আর্থিক খাতে উন্নতি হলেও তা এখনও পর্যাপ্ত নয়।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের পরবর্তী উন্নয়ন পর্যায়ের জন্য নগরায়ন অপরিহার্য। ভারসাম্যপূর্ণ নগরায়নের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত বলেও তুলে ধরা হয়েছে প্রতিবেদনে।

বাংলাদেশের পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক এবং আইএমএফ'র সাবেক কর্মকর্তা আহসান এইচ মনসুর বলেন, "বিশ্বব্যাংক যা বলেছে তার সঙ্গে আমি সম্পূর্ণ একমত। আমাদের প্রথম প্রজন্মের সংস্কার করা হয়েছে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রজন্মের সংস্কার করতে হবে। কিন্তু আমরা এখনও দ্বিতীয় প্রজন্মের সংস্কার শুরু করিনি।"

তিনি আরও বলেন, ভিয়েতনামসহ অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ক্রমেই পিছিয়ে পড়ছে।

"বর্তমান নীতির মাধ্যমে আমাদের মাথাপিছু আয় ১২ হাজার মার্কিন ডলারে নিয়ে যেতে পারিনা। মানবসম্পদ উন্নয়নে আমাদের কোনো বিকল্প নেই," যোগ করেন তিনি।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: