মোংলায় দিনদুপুরে প্রবাসীর বাড়িতে চুরি, ২০ লাখ টাকার মালামাল লুট

আলী আজীম, মোংলা, বাগেরহাট | ৬ অক্টোবর ২০২২ ১১:৪০

সংগৃহীত সংগৃহীত

মোংলায় প্রশাসনের নাকের ডগার উপর দিয়ে দিন দুপুরে একের পর এক ঘটছে চুরি-ডাকাতির ঘটনা। ফলে আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছে পৌর শহরের বসবাসরত সাধারন মানুষ। বুধবার (৫ অক্টোবর) মোংলা পৌর শহরের শেলাবুনিয়া জিয়া সড়কের কাজী বাড়িতে দিন দুপুরে ঘটেছে দুর্ধষ চুরি ঘটনা। সকাল ১১টার দিকে এক প্রবাসীর তালা বদ্ধ ঘরের দরজা খুলে লকার ভেঙ্গে হাতিয়ে নিয়েছে নগদ টাকা সহ প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল। এব্যাপারে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

থানার অভিযোগ সুত্রে ও ভুক্তভোগী পরিবার জানায়, ছেলে প্রবাসে থাকায় মোসাঃ আমেনা বেগম নামের এক বৃদ্ধা নারী মোংলা পোর্ট পৌর শহরের ৮নং ওয়ার্ড শেহালাবুনিয়া জিয়া সড়কের নিজ ভবনে বসবাস করতেন। তিনি শারীরিক ভাবে অসুস্থ থাকায় দুদিন আগে চিকিৎসার জন্য বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করেন। বৃদ্ধা ওই নারী বাড়িতে না থাকার সুযোগে কয়েকজন অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্ত তার ঘরের দরজার তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে বলে থানার লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করে। ঘরে থাকা স্টিলের আলমারির ড্রয়ার তালা ও লকার ভেঙ্গে ভিতরে থাকা ২২ ভরি স্বর্নালংকার লুট করে নিয়ে যায়। যার আনুমানিক মুল্য প্রায় সাড়ে ১৫ লক্ষ টাকা।

এছাড়া ঘরের আসবাস পত্র ভাংচুর ও তছনছ করে নগদ টাকা ও বেশ কিছু প্রয়োজনীয় মুল্যবান কাগজপত্র চুরি করে নিয়ে যায়। বিষয়টি বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ঘরের দরজা খোলা অবস্থায় দেখতে পায় তার মেয়ে কবি আফরোজা হীরা। পরে কাছে গিয়ে দরজার তালা ভাঙ্গা ও ভিতরে ঘরে থাকা বিভিন্ন মুল্যবান মালামাল এলোমেলো অবস্থায় নিচে পড়ে থাকতে ও স্বর্ণালংকার নাই বলে দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় আফরোজা হীরা।

পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং এ ঘটনার বিবরণে আফরোজা হীরা বাদী হয়ে মোংলা থানায় অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেণ। গত দুই সপ্তাহে মোংলা উপজেলার ইউনিয়ন ও পৌর শহরের বেশ কয়েকটি বাড়িতে দিন দুপুরে চুরি-ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। দিন দুপুরে এমন ঘটনা নিয়ে মোংলা এলাকায় বসবাসরত সাধারণ মানুষের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। তারা তদন্ত করে এর সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করতে প্রশাসনের সহায়তা কামনা করছে এলাকাবাসী।

মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ মনিরুল ইসলাম বলেন, পৌর শহরে এক প্রবাসীর বাড়ীতে ঘরের তালা ভেঙ্গে স্বর্ণালংকার লুটের ঘটনায় অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভোগীর মেয়ে আফরোজা হীরা। খবর পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ পাঠানো হয়েছে এবং তদন্ত করে এর সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলেও জানান থানার এ কর্মকর্তা।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: