আওয়ামীলীগ নেতা মোহনের কাছে চাঁদা দাবি, অফিস ষ্টাফদের অপহরণ

শাহাদাত রাসেল চৌধুরী | ৫ অক্টোবর ২০২২ ১৬:৪৮

সংগৃহীত সংগৃহীত

সাবেক ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন (মোহন) এর ব্যাবসায়ীক অফিসে যান জিগাতলার সন্ত্রাসী খোকন ও তার একদল গুন্ডা বাহিনী।

অফিসে গিয়ে, সাবেক ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন (মোহন) এর ম্যানেজার ও স্টাফকে মারধর করে। পরে পিস্তল ঠেকিয়ে তাদের ২ জন কে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে মোহনের কাছে মুঠোফোনে পুরো ৫০ লক্ষ টাকা দাবি করেন, এবং সাথেই তাদেরকে (তার ম্যানেজার ও স্টাফ এবং প্রয়োজনে তাকেও) মেরে ফেলার ভয় ভীতি দেখায়।

কিন্তু কোনরকম দেরি না করে, সাবেক ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন (মোহন) বিষয়টি হাজারীবাগ থানার পুলিশকে অবহিত করেন।

পরে পুলিশের তৎপরতা টের পেয়ে আসামীগণ অপহৃত অফিসের ম্যানেজার ও স্টাফকে আহত অবস্থায় ছেড়ে দেয়।

পরবর্তীতে আহত অবস্থায় তাদের নিয়ে পুনরায় থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করেন ছাত্র নেতা মোহন।

এবং সবশেষে জানা যায়, এত বড় গুন্ডা দাবি করে যে পুরো ৫০ লক্ষ টাকা চাঁদা চাইলো, সে এখন পুলিশের হেফাজতে। আওয়ামীলীগ নেতা সাখাওত হোসেন মোহন এমন ঘটনার এবং সন্ত্রাসীদের সঠিক বিচার দাবী করেন, যেন কোনো সন্ত্রাসী পার না পায়।

পুলিশ তাকে ধরার পর আরো জানা যায়, সে শুধুই চাঁদাবাজি নয়, এরকম বহু অপরাধের সাথেই জড়িত গুন্ডা খোকন ওরফে গোল্ডেন খোকন। এ ধরনের অপরাধ তার কাছে কিছুই নয়। বিভিন্ন পরিচয়ে পরিচিত হতো সে, বিশেষ করে শেখ জামালের সভাপতির ভুয়া পরিচয় দিত ওই চাঁদাবাজ। এবং সে দীর্ঘদিন থেকে ধানমন্ডি ১৫ নম্বরে KV বিল্ডিং এর ৪ তলায় অবৈধ শিশা বার ও নারী ব্যবসায় দীপ্ত আছে।

সাথে আরও জানা যায়, আগে ওই চাঁদাবাজ যুবদলের নেতা ছিলো। আপাতত সে ভুক্তভোগী সাবেক ছাত্রনেতা ও আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন মোহনের দায়ের করা এজাহারভুক্ত গ্রেফতারকৃত আসামি।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: