শিক্ষার্থীকে গণধর্ষণ, না জানাতে কোরআন ছুঁয়ে শপথ

সময় ট্রিবিউন | ৫ জুলাই ২০২২ ১০:৫৩

সংগৃহীত সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে স্থানীয় এক মাদ্রাসার দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি কাউকে না জানাতে শিশুকে কোরআন ছুঁয়ে শপথ করানো হয়েছিল বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলায় দুই ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে।

নির্যাতিতার মা বাদী হয়ে মামলা করেন। তবে স্থানীয় বিভিন্ন প্রভাবশালী মহলের চাপের মুখে নির্যাতিতার পরিবারের পক্ষ থেকে আইনী সহযোগিতা নিতে পারছিল না। পরে নির্যাতিতার ‘মা’ মামলাটি করেন। আসামিরা হলো- স্থানীয় ছনপাগড়া এলাকার রফিকুলের ছেলে আল-মাহিন (২২), একই এলাকার রশ ওরফে রশীদের ছেলে আছলাম (১৮)। 

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় ছনপাড়া এলাকার দারুত তাওহিদ সালাফিয়া মাদ্রাসায় দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। আছলাম আমার নির্যাতিতা ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে রফিকুলের বাড়িতে আরবি প্রাইভেট পড়তে যেতো। ২৯ জুন রাত ৮টার দিকে রফিকুলের বাড়িতে একটি ঘরে প্রথমে শিক্ষক আল-মাহিন তাকে ধর্ষণ করে।

পরে চাচাতো ভাই রফিকুলও পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, নির্যাতিতাকে পরে কোরআন ছুঁয়ে কসম দিয়ে ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ঘটনাটি কাউকে না জানানোর জন্য শাসিয়ে দেওয়া হয়। রাত ৯টার দিকে শিশুটি তার বাড়িতে এসে তার মা-বাবাকে ঘটনাটি বলে দেয়।

 
আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত-কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুল হক হাওলাদার বলেন, মেয়েটি শিক্ষক মাহিনের কাছে আরবি প্রাইভেট পড়তে যেতো। সঙ্গে তার চাচাতো ভাই রফিকুলও যেতো। এ ঘটনায় একটি মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে।

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: