জেন্ডার সমতা তুলে ধরতে ঢাবিতে ‘৫০-৫০’ বির্তক প্রতিযোগিতা

ঢাবি প্রতিনিধি | ১০ অক্টোবর ২০২২ ২০:১৬

ছবিঃ সংগৃহীত ছবিঃ সংগৃহীত

তরুণ প্রজন্মের কাছে জেন্ডার সমতার ধারণাকে তুলে ধরতে ‘পেসিং টুওয়ার্ড ইকুয়ালিটি’-কে প্রতিপাদ্য করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত হলো ব্রিটিশ পার্লামেন্টারি বাংলা বিতর্ক প্রতিযোগিতা’র দ্বিতীয় আসর। নারী ও পুরুষ প্রতিযোগির সমান অংশে অনুষ্ঠিত এ প্রতিযোগিতার নামও রাখা হয় ‘৫০-৫০’(ফিটটি-ফিফটি)। দুই দিনের টুর্নামেন্ট শেষে গতকাল শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণী।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ছিলেন ড. এম ওয়াহিদুজ্জামান। এছাড়া বাংলাদেশ মহিলা সমিতির সভাপতি ফওজিয়া মোসলেম, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এবং আইইআর ডিবেটিং ক্লাবের বর্তমান মডারেটর মো. ফজলুর রহমান, অধ্যাপক ড. মো. মাহবুবুর রহমান, আইইআর অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মতিয়ার রহমান ও ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি জনাব শেখ মো. আরমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতার জন্য পুরো বাংলাদেশ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ৯০টি দল এতে রেজিস্ট্রেশন করেছিলো। আয়োজনের প্রথম দিন ৭ অক্টোবর মোট ৩২ জন বিতার্কিককে নিয়ে গড়ে ওঠা ১৬টি দল মূলপর্বে অংশ নেয়। পরপর ৩ রাউন্ড বিতর্কের পর মোট ৪টি দল পরদিন চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেয়। টুর্নামেন্টে বিজয়ী হয় শিনচ্যান অ্যান্ড মাসাও দলের মোহাম্মদ হাসিব খান এবং শেখ সাদিয়া সিদ্দিকা। তারা উভয়েই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এছাড়া ডিবেটার অব দা টুর্নামেন্ট নির্বাচিত হন আবদুল্লাহ আল বাঁধন (ইউনাইটেড ইন্টান্যশনাল ইউনিভার্সিটি), মির্জা সাকি (জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি) এবং মোহাম্মদ বখতিয়ার (চট্টগ্রাম বিশ্বদ্যালয়)। ৫০-৫০ এর এবারের আসরে ডিবেটার অফ দা ফাইনাল নির্বাচিত হন শিনচান অ্যান্ড মাসাও দলের সদস্য মোহাম্মদ হাসিব খান।

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অধ্যাপক এম ওয়াহিদুজ্জামান বিতর্ক বিষয়ক স্মৃতিচারণা করেন এবং বিতার্কিকদের বিতর্ক শেখার পাশাপাশি একজন ভালো মানুষ হওয়ার চেষ্টা করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘বিতার্কিকদের যেমন যৌক্তিকভাবে চিন্তা করা শিখতে হবে ঠিক তেমনি অন্যের মতামতকেও শ্রদ্ধা করতে হবে।’ এছাড়াও তিনি নারী-পুরুষের সমতা বিতর্ক অঙ্গনের পাশাপাশি সকল ক্ষেত্রেই যেন প্রতীয়মান হয় এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ফওজিয়া মোসলেম বলেন, নারীরা এখনো পিছিয়ে আছে, তাদেরকেও সামনে আনতে হবে। শুধু ডিবেটের ক্ষেত্রে না, ব্যক্তিজীবনেও যেন নারীদের শ্রদ্ধা করা হয়, জেন্ডার ইকুয়ালিটি মেইনটেইন করা হয় এ বিষয়ে আমাদের প্রত্যকে সচেতন হতে হবে। আইইআর ডিবেটিং ক্লাবের এ আয়োজন বর্তমান তরুন প্রজন্মের জেন্ডার ইকুয়ালিটি মনোভাবের চমৎকার প্রকাশ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আইইআর ডিবেটিং ক্লাবের প্রেসিডেন্ট রেজাউল করিম বলেন, আমরা বিশ্বাস করি আমাদের এ আয়োজনের মাধ্যমে বর্তমান তারুণ্যের মাঝে লিঙ্গ সমতার ধারণাটি আরও সুপ্রতিষ্ঠিত হবে।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন: